• শুক্রবার, ৩০ জুলাই ২০২১, ১৫ শ্রাবণ ১৪২৮

বাচ্চারা গানটি পছন্দ করেছে

 বাচ্চারা গানটি পছন্দ করেছে

আমার বন্ধুর আত্মীয় কানাডায় থাকে। তাদের সাত বছরের বাচ্চা আছে। তিন বেলা খাবারের সময় ওর জন্য আমার গান বাজাতে হয়। ‘ঝুম’ তার পছন্দের তালিকায়। গত বছর দেশে এসেছিল। আমার জন্য অনেকগুলো চকলেট নিয়ে এসেছিল। দেখা করেছে। ছবি তুলেছে। এভাবেই ঝুম গান নিয়ে নিজের অভিজ্ঞতার কথা বললেন গায়ক, গীতিকার ও সংগীত পরিচালক মিনার রহমান।

মিনারের গাওয়া ঝুম গানটির ভিডিও ইউটিউবে চার কোটির মাইলফলক ছুঁয়েছে। বিষয়টি তাঁর জন্য ভীষণ আনন্দের বলে জানালেন। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় মিনারের সঙ্গে যখন কথা হচ্ছিল তখন তিনি জন্মশহর চট্টগ্রামে। মুঠোফোনে তিনি বলেন, ‘এটি পুরোপুরি ভিন্ন অ্যাপ্রোচের একটা গান। শ্রোতারা যে এমন একটি ভাবনা গ্রহণ করেছে, এটাই সবচেয়ে বেশি ভালো লাগার। ঝুম বৃষ্টির শব্দ। মানুষ গানটি শুনে শুনে উদ্যাপন করে, এটা আনন্দের অনুভূতি।’

বৃষ্টির ভাবনাকে সুরে সুরে বাঁধবার ইচ্ছেটা মিনারের মাথায় ঢোকে ২০১৫ সালে। তবে বৃষ্টির প্রতি ভালোবাসা জন্মায় একেবারে ছোটবেলায়। দাদার চট্টগ্রাম শহরের বাড়ি ও খালার হাটাহাজরীর বাড়িতে যখন যেতেন তখন বৃষ্টির শব্দটা তাঁকে আনমনা করত। যেহেতু তখন গানের জগতে পথচলা শুরু হয়নি, গান আকারে বৃষ্টির শব্দ সুরে সুরে বাঁধা হয়নি। মিনার বলেন, ‘ বৃষ্টি নিয়ে ঝুম গানের ভাবনাটা একান্ত আমার। ঝুম তেরে রা রে রা—এই লাইনটা এক বছর ধরে আমার মাথায় ঘুরছিল, এরপর ২০১৬ সালে গানটা তৈরি করি। হুমায়ূন আহমেদ তাঁর বিভিন্ন লেখায় বৃষ্টি ব্যাপারটাকে তুলে এনেছেন। বৃষ্টিকে উদ্যাপন করা শিখিয়েছেন। যদিও বৃষ্টি হলে এ দেশের মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে যায়, তারপরও বৃষ্টির আলাদা সৌন্দর্য আছে। ওই জিনিসটা আমাকে বেশি অনুপ্রাণিত করেছে। একটা সময় বৃষ্টি নিয়ে গান তৈরির সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করি। প্রচণ্ড গরমের পর ঝুম বৃষ্টি যেমন প্রশান্তি এনে দেয়, তেমনি ঝুম গানটি তৈরির পরও আমার মধ্যে তেমন একটা প্রশান্তি কাজ করে। আমরা তাই গানের ভিডিওতে বৃষ্টি ব্যাপারটাকে বেশি ফোকাস করেছি। এমনকি ঝুম মুক্তির আগে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বলেছি, লেটস সেলিব্রেট দ্য রেইন।’

গান মুক্তির আগে যে উদ্যাপনের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন এই কয়েক বছর ধরে তা চলছে। মিনার দর্শক–শ্রোতার সঙ্গে গানটি উদ্যাপন করেই চলছেন। মিনার বলেন, ‘ঝুম গানটি মুক্তির পর থেকেই সব কনসার্ট শেষ হয় গানটি দিয়ে। একই সঙ্গে ‘সাদা’, ‘আহারে’, ‘দেয়ালে দেয়ালে’ গানের সঙ্গেও দর্শক-শ্রোতারাও দারুণ একাত্ম হয়।’
শ্রোতাদের পাশাপাশি অগ্রজ সংগীতশিল্পীদের কাছ থেকেও এই গান নিয়ে প্রশংসা কুড়িয়েছেন মিনার। জানালেন, ‘বাপ্পা মজুমদার ও ফুয়াদ আল মুক্তাদির গানটি ফেসবুকে তাঁদের ভক্তদের সঙ্গে শেয়ার করেছেন। এই পর্যায়ের মিউজিশিয়ান যখন এমন কাজ করেন, তা ভীষণ অনুপ্রেরণার।’

মিনারের বোনের সন্তানদেরও ঝুম গানটি অনেক বেশি পছন্দের বলে জানান তিনি। মায়ের বেশি পছন্দ সাদা হলেও ঝুম ভালো লাগার তালিকায় রয়েছে।
ঝুম গানটির সংগীতায়োজন সাজিদ সরকারের। ভিডিও নির্মাণ করেছেন তানিম রহমান। আর ২০১৬ সালের ১৬ জুন গানটি ইউটিউবে উন্মুক্ত করেছে গানচিল মিউজিক।

headadmin

Leave a Reply

Your email address will not be published.